সুতোয় ঝুলে গিয়েছিল আর্জেন্টিনার ভাগ্য

স্পোর্টস রিপোর্টার : 

সুতোয় ঝুলে গিয়েছিল আর্জেন্টিনার ভাগ্য। পেন্ডুলামের মতোই দুলছিল মেসিদের দ্বিতীয় রাউন্ডের স্বপ্নটা। অবশেষে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললেন কোটি কোটি আর্জেন্টাইন ভক্ত। উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার পর এ যাত্রায় বেঁচে গেল দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। কাল সেন্ট পিটার্সবার্গে নাইজেরিয়াকে ২-১ গোলে হারিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠে গেল জর্জ সাম্পাওলির দল। শনিবার কাজানে নক আউট পর্বে ম্যাচে আর্জেন্টিনার প্রতিপক্ষ ‘সি’ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স।

রাশিয়া বিশ্বকাপের শুরুতেই খাদের কিনারায় গিয়ে দাঁড়িয়েছিল আর্জেন্টিনা। প্রথম ম্যাচে আইসল্যান্ডের কাছে পয়েন্ট খোয়াতে হয়েছে ১-১ গোলে। পরের ম্যাচে তো ক্রোয়েশিয়ার কাছে রীতিমতো বিধ্বস্ত হতে হয়েছে মেসিদের। ৩-০ গোলের ওই হারে আশার প্রদীপটা প্রায় নিভু নিভু হয়ে গিয়েছিল।

আর্জেন্টিনাকে আশার আলো দেখিয়েছিল নাইজেরিয়া। আইসল্যান্ডকে হারিয়ে মেসিদের স্বপ্নটা জিইয়ে রেখেছিল আফ্রিকান সুপার ঈগলরা। কিন্তু শেষ অবধি এই আর্জেন্টিনার কাছেই স্বপ্নভঙ্গ হলো মুসা-মোসেজদের।

অবশ্য দ্বিতীয় রাউন্ডের টিকিটের জন্য জয়ই যথেষ্ট ছিল না আর্জেন্টিনার জন্য। তাদের চেয়ে থাকতে হতো ক্রোয়েশিয়া-আইসল্যান্ড ম্যাচের দিকে। ওখানে আবার আর্জেন্টিনার জন্য অর্ধেক কাজটা সেরে ফেলেছে ‘ডি’ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ক্রোয়েশিয়া। গ্রুপের অন্য ম্যাচে কাল ক্রোটরা আইসল্যান্ডকে হারিয়ে দিয়েছে ২-১ গোলে। তাতেই মেসিদের টিকে থাকার সম্ভাবনা জেগেছিল। কিন্তু সম্ভাবনার পাশ ঘিরে অশনিসংকেতও ছিল। কাল সেন্ট পিটার্সবার্গে যে ৮৫ মিনিট পর্যন্ত আর্জেন্টিনাকে ১-১ গোলে আটকে রেখেছিল নাইজেরিয়া। আর কয়েকটা মিনিট পার করতে পারলেই চলত আফ্রিকান সুপার ঈগলদের। কিন্তু তাদের সর্বনাশটা হয়ে গেল ৮৬ মিনিটে।

দুর্দান্ত এক শটে নাইজেরিয়ানদের জাল কাঁপান মার্কোস রোহো। বলটা জালে জড়ানোর সঙ্গে সঙ্গেই গর্জে উঠল সেন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়াম। এই গোলটাই শেষ পর্যন্ত আর্জেন্টিনার পরের রাউন্ডের টিকিটের জন্য অবলম্বন হয়ে দাঁড়ায়।

এর আগে নক আউট পর্বে যাওয়ার আশা জাগিয়েছিলেন খোদ প্রাণভোমরা লিওনেল মেসি নিজেই। ১৪ মিনিটে এভার বানেগার কাছ থেকে বল পেয়ে নাইজেরিয়ার জলে বল জড়িয়ে দেন আর্জেন্টিনা অধিনায়ক। কিন্তু এই গোলের উচ্ছ্বাসটা বাতাসে মিলে গেল দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই।

৫১ মিনিটে পেনাল্টি থেকে গোল করে নাইজেরিয়াকে সমতায় ফেরান ভিক্টর মোসেস। স্পট কিক থেকে গোল করার পর দারুণ এক ডিগবাজি দিয়েছেন নাইজেরিয়ান ফরওয়ার্ড। আফ্রিকান সুপার ঈগলরা ৭৬ মিনিটে দ্বিতীয় পেনাল্টি পেতে পারত। কিন্তু আবেদন করেও লাভ হয়নি তাদের।

প্রায় শূন্য থেকে পড়া বলটা বিপদমুক্ত করতে গিয়ে ডি-বক্সে হ্যান্ডবল করেন রোহো। তার মাথা ছুঁয়ে বল লাগে আর্জেন্টাইন ডিফেন্ডারের হাতে। কিন্তু হ্যান্ডবলটা ইচ্ছাকৃত ছিল না বলেই ভিডিও অ্যাসিসটেন্ট রেফারিংয়ের সহায়তা নিয়ে নাইজেরিয়ার দাবিটা নাকচ করে দেন ম্যাচকর্তা।

আক্রমণ পাল্টা আক্রমণে জমে ওঠা ম্যাচটা আরো বড় ব্যবধানে জিততে পারত আর্জেন্টিনা। কিন্তু ২৬ মিনিটে নাইজেরিয়ান গোলরক্ষককে একা পেয়েও গোল করতে পারেননি হিগুয়েইন। ৮০ মিনিটে ফাঁকায় বল পেয়েও পোস্টের বাইরে বল মারেন আর্জেন্টাইন এই ফরওয়ার্ড।

সুযোগ পেয়েছিলেন অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়াও। ৩১ মিনিটে বল নিয়ে চিতার গতিতে বল নিয়ে নাইজেরিয়ার গোলমুখের দিকে ছুটছিলেন তিনি। কিন্তু ডি-বক্সের খুব কাছে তাকে ফেলে দেন লিওন বালোগুন। তাকে হলুদ কার্ড দেখান রেফারি। ওই ফ্রি-কিক থেকেই মেসির দুর্দান্ত শট দারুণভাবে ঠেকিয়ে দেন নাইজেরিয়া গোলরক্ষক ফ্রান্সিস উজোহো। তার গ্লাভস ছুঁয়ে ক্রসবারে লেগে বল ফিরে আসে। গোলবঞ্চিত হন মেসি।

তিন ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে ‘ডি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন হলো ক্রোয়েশিয়া। শেষ ষোলোতে তাদের প্রতিপক্ষ ‘সি’ গ্রুপের রানার্সআপ ডেনমার্ক। ৪ পয়েন্ট পাওয়া আর্জেন্টিনার সামনে ফ্রান্স। ৩ পয়েন্ট নিয়ে বিদায় নিয়েছে নাইজেরিয়া। আইসল্যান্ডের পয়েন্ট এক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here