রাজশাহীর বাঘা উপজে’লার বাউসা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) আট নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ইন্তাজ আলীকে আ’পত্তিকর অবস্থায় আ’ট’কের পর ধ’র্ষণ মা’মলায় কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মঙ্গলবার (১৮ আগস্ট) বিকেলে ওই মা’মলায় ইউপি সদস্যকে গ্রে’ফতার দেখিয়ে আ’দালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায় পু’লিশ। এর আগে সোমবার (১৭ আগস্ট) গভীর রাতে তাকে উপজে’লার আড়পাড়া গ্রামের এবং গৃহবধূর ঘর আ’ট’ক করে স্থানীয়রা। পরে তাকে পু’লিশের হাতে সোপর্দ করা হয়।

যদিও এ ঘটনার পর ওই গৃহবধূ ইউপি সদস্যের বি’রুদ্ধে ধ’র্ষণের অ’ভিযোগে মা’মলা করেছে থা’নায়। মঙ্গলবার তাকে ওই মা’মলায় কারাগারে পাঠিয়েছে পু’লিশ। এছাড়া ওই গৃহবধূকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতা’লের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) পাঠানো হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, ওই গৃহবধূর সঙ্গে দীর্ঘদিন থেকে পর’কী’য়া প্রে’মের স’ম্পর্ক চালছিল ইউপি সদস্য ইন্তাজ আলীর। সোমবার রাতে অ’নৈতিক কাজের জন্য ওই বাড়ি যান। এ সময় স্থানীয়রা তাকে আ’পত্তিকর অবস্থায় ধরে ফেলেন। পরে সকালে পু’লিশ গিয়ে ইন্তাজ আলীসহ ওই গৃহবধূকে থা’নায় নিয়ে আসেন।

এরপর ঘটনার দৃশ্যপট পাল্টায়। ওই গৃহবধূ বাদী হয়ে ইউপি সদস্যের বি’রুদ্ধে থা’নায় ধ’র্ষণের মা’মলা দায়ের করেন। মঙ্গলবার বিকেলে ওই মা’মলায় ইউপি সদস্যকে গ্রে’ফতার দেখিয়ে আ’দালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায় পু’লিশ। এছাড়া ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ওই গৃহবধূকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতা’লের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) পাঠানো হয়।

ঘটনার পর বাউসা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান শফিক বলেন, আ’ট’ক হওয়ার পর ওই গৃহবধূ ধ’র্ষণের মা’মলা করেছেন। কিন্তু এটি পর’কী’য়া প্রে’মের স’ম্পর্কের ঘটনা ছিল বলেই স্থানীয় সূত্রে তিনি জানতে পেরেছেন।

রাজশাহীর বাঘা থা’নার ভা’রপ্রাপ্ত কর্মক’র্তা (ওসি) নজরুল ইস’লাম বলেন, ওই গৃহবধূ দুই সন্তানের জননী। তার স্বামী রয়েছে। এ ঘটনায় ওই গৃহবধূ ধ’র্ষণের অ’ভিযোগ করায় তার মা’মলা নেওয়া হয়েছে। আর আইন অনুযায়ীই ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এজন্য ওই গৃহবধূকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য রামেক হাসপাতা’লে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান বাঘা থা’নার ওই 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here