Top news 24

অনলাইন ডেস্ক

নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী আসনের বিশেষ ক্ষমতার প্রয়োগ করে মিয়ানমারের সেনা অভ্যুত্থান বিরোধী জাতিসংঘের নিন্দাপ্রস্তাব আটকে দিল চীন। যদিও প্রতিপক্ষ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হুঁশিয়ারি দ্রুত মিয়ানমারের পরিস্থিতি গণতন্ত্রমুখী না হলে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

খবর অনুযায়ী, রক্তপাতহীন সেনা অভ্যুত্থানের পর মিয়ানমারের পরিস্থিতি থমথমে। দেশটির রাজধানী নেপিদসহ মিয়ানমারের সর্বত্র সেনাবাহিনির টহল চলছে। এখন দেশটির শাসক সেনা বাহিনির প্রধান মিন অং লাইং।

মিয়ানমার সর্বময় শাসক থেকে ক্ষমতাচ্যুত হলেও দেশের জনগণের কাছে অং সান সুচি জনপ্রিয়। গত জাতীয় নির্বাচনে তার দল আইএনএলডি বিপুল ভোটে জয়ী হয়ে পুনরায় সরকার গঠন করে। কিছু আসন পায় সেনা সমর্থিত দল। তবে সরকার গঠন প্রক্রিয়া শুরুর আগেই গত সোমবার অভ্যুত্থান হয়। ফের সেনাবাহিনীর দখলে চলে গিয়েছে মিয়ানমারের শাসন।
মিয়ানমারের সংবিধান অনুসারে জাতীয় সংসদে সেনার জন্য সংরক্ষিত ২৫ শতাংশ আসন। এর ফলে কোনও দল সংখ্যা গরিষ্ঠতা পেয়ে সরকার গড়লেও সেনার ক্ষমতা থেকেই যায়। আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের খবর, সেনার ক্ষমতা কমাতে এই আইনটি সংশোধনের পথ নিতে চলেছিলেন অং সান সুচি। এই কারণে সেনার সঙ্গে সংঘাত শুরু হয়। এর পরিণতি ফের সেনা অভ্যুত্থান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here