রাজধানীর মিরপুরে যত্রতত্র গড়ে উঠেছে বউবাজার , লাভ এর চেয়ে বেশি হচ্ছে ক্ষতি , রাস্তাঘাটে চলাফেরা হচ্ছে যানজট , বউবাজার কে কেন্দ্র করে বাড়ছে চাঁদাবাজি , এ যেন এক মগের মুল্লুক ।

আবাসিক এলাকার ভিতরে গড়ে উঠেছে একটি বাজার , বাজারে অসংখ্য দোকান , জার নাই কোনো অনুমোদন , বাজার কে কেন্দ্র করে রাস্তায় গাড়ি-ঘোড়া চলাফেরায় কৃত্রিম যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে , হচ্ছে পরিবেশ দূষণ , বাড়ছে মশার উৎপাত , মশা থেকে ছড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন রকমের রোগ উল্লেখযোগ্য ডেঙ্গু চিকুনগুনিয়া ম্যালেরিয়া ।

একটি ছয়তলা ভবনের নিচে সম্পূর্ণ পরিকল্পনা বহির্ভূত একটি বাজার , ১৩৯/৪ মাসুদ ভিলা , শাহআলীবাগ বউবাজার , মসজিদ মাদ্রাসা রোড ।

আমরা যখন এই বাজারটি সম্পর্কে অবগত হই , সরোজমিনে বাজার টি দেখতে যাই , বাজারটি দেখার পর ভয়ে আমাদের বুক কেঁপে ওঠে , পরিকল্পনাহীন ভাবে বাজারটি প্রতিষ্ঠা করায় ঘটতে পারে যেকোনো মুহূর্তে বড় রকমের কোন দুর্ঘটনা , এই ব্যাপারে আমরা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করি , আমরা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসে গেলে সেখানে তার রুমে তালা ঝুলছে দেখতে পাই , ফোনে তার সাথে যোগাযোগ করি , তিনি ফোনে আমাদের নিকট হইতে বাজারে ঠিকানাটি নেন এবং আশ্বস্ত করেন ব্যাপারটা তিনি দেখবেন , পরবর্তীতে বাজার সম্পর্কে কিছু জানার জন্য আমরা আরো দুইদিন নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসে যাই কিন্তু উনাকে পাইনি , প্রথমে তিনি আমাদেরকে ফোনে আশ্বস্ত করলেও পরবর্তীতে আমরা ফোনেও ওনাকে পাইনি , ব্যাপারটি গুরুত্ব সহকারে দেখার জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি ।

রাজধানীর যত্রতত্র গড়ে উঠেছে ছোটখাট বাজার স্থাপনা , উল্লেখযোগ্য মিরপুরের ১৪ নং আসন , যেন প্রতিষ্ঠিত হয়েছে মগের মুল্লুক ।

রাজধানীর মিরপুরে যত্রতত্র গড়ে উঠেছে বউবাজার , লাভ এর চেয়ে বেশি হচ্ছে ক্ষতি , রাস্তাঘাটে চলাফেরা হচ্ছে যানজট , বউবাজার কে কেন্দ্র করে বাড়ছে চাঁদাবাজি , এ যেন এক মগের মুল্লুক ।

আবাসিক এলাকার ভিতরে গড়ে উঠেছে একটি বাজার , বাজারে অসংখ্য দোকান , জার নাই কোনো অনুমোদন , বাজার কে কেন্দ্র করে রাস্তায় গাড়ি-ঘোড়া চলাফেরায় কৃত্রিম যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে , হচ্ছে পরিবেশ দূষণ , বাড়ছে মশার উৎপাত , মশা থেকে ছড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন রকমের রোগ উল্লেখযোগ্য ডেঙ্গু চিকুনগুনিয়া ম্যালেরিয়া ।

একটি ছয়তলা ভবনের নিচে সম্পূর্ণ পরিকল্পনা বহির্ভূত একটি বাজার , ১৩৯/৪ মাসুদ ভিলা , শাহআলীবাগ বউবাজার , মসজিদ মাদ্রাসা রোড ।

আমরা যখন এই বাজারটি সম্পর্কে অবগত হই , সরোজমিনে বাজার টি দেখতে যাই , বাজারটি দেখার পর ভয়ে আমাদের বুক কেঁপে ওঠে , পরিকল্পনাহীন ভাবে বাজারটি প্রতিষ্ঠা করায় ঘটতে পারে যেকোনো মুহূর্তে বড় রকমের কোন দুর্ঘটনা , এই ব্যাপারে আমরা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করি , আমরা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসে গেলে সেখানে তার রুমে তালা ঝুলছে দেখতে পাই , ফোনে তার সাথে যোগাযোগ করি , তিনি ফোনে আমাদের নিকট হইতে বাজারে ঠিকানাটি নেন এবং আশ্বস্ত করেন ব্যাপারটা তিনি দেখবেন , পরবর্তীতে বাজার সম্পর্কে কিছু জানার জন্য আমরা আরো দুইদিন নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসে যাই কিন্তু উনাকে পাইনি , প্রথমে তিনি আমাদেরকে ফোনে আশ্বস্ত করলেও পরবর্তীতে আমরা ফোনেও ওনাকে পাইনি , ব্যাপারটি গুরুত্ব সহকারে দেখার জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here