আবুল কাসেম বিশেষ প্রতিনিধিঃ-

বাঙ্গালী জাতির সূর্য সন্তানদের ন্যায্য অধিকার পাওয়ার দাবি

বর্তমান সরকারের কাছে । একটু সুদৃষ্টিই পারে আমাদের সুন্দর ভাবে বেঁচে থাকার জন্য যথেষ্ট।

গত বৃহস্পতিবার মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে তিতাসের অবৈধ গ্যাস সংযোগের বিরুদ্ধে অভিযান চলে। অবৈধ গ্যাস সংযোগ চালাচ্ছে শত শত পরিবার ! গ্যাস পাইপে লিকেজ থাকার করনে যে কোন সময় ঘটতে পারে আরও একটি ভয়াবহ দুর্ঘটনা।

মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে বসবাসকারী মুক্তিযোদ্ধারা অভিযোগ করে বলেন আমরা বিভিন্ন সময় তিতাস কতৃপক্ষের নিকট বৈধ গ্যাস সংযোগের জন্য ডিমান্ড নোট সহ আবেদন করলেও তিতাস কতৃপক্ষ সেটিকে কানেই নেন না, বৈধ গ্যাস সংযোগ দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তাই সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছে কমপ্লেক্স বসবাস কারি মুক্তিযোদ্ধারা ?

মুক্তিযোদ্ধারা বর্তমান সরকারের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন যে চিড়িয়াখানা রোডে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে শতশত মুক্তিযোদ্ধোদের বৈধ ভাবে গ্যাস, বিদুৎ পানির সংযোগ দেওয়ার জোড় দাবি করেন তাঁরা। এলাকার সাধারণ জনগনের একই দাবি দ্রুত মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে বৈধ গ্যাস সংযোগ দেওয়া হোক।

মুক্তিযোদ্ধারাও চান না আমরা অবৈধ কোন কিছু ব্যবহার করি। আমাদের সংযোগটির বৈধতা নিশ্চিত করতে বর্তমান মুক্তিযোদ্ধার স্বপক্ষের সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে বসবাসকারী প্রায় তিনশত যোদ্ধাহত ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবার।

সূত্রে জানা গেছে, গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানির সংযোগ পরিপূর্ণ ভাবে নগরবাসি সেবা পাওয়ার কথা থাকলেও প্রকৃত পক্ষে থেকে বঞ্চিত হচ্ছে গ্রাহকরা। বৈধ কাগজ পত্রসহ টাকা পয়সা জমা দিয়েও পাচ্ছেনা বৈধভাবে সংযোগ। এ সকল সংযোগ নিতে গ্রাহকদের মাসের পর মাস ঘুরতে হচ্ছে সংশ্লিষ্ট দফতরে। তার পরেও কোন প্রতিকার বা সমাধান পাচ্ছে না সংযোগ নিতে ইচ্ছুক গ্রাহকরা।

অভিযোগ রয়েছে, গ্যাস, বিদ্যুৎ কিংবা পানির, এ সকল সংযোগ দীর্ঘদিন যাবত অবৈধ ভাবে চলছে রাজধানীর বহু জায়গাতে। কিন্তু সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের কালক্ষেপণ এর জন্য বছরের পর বছর চলছে এসকল সংযোগ। অবৈধ ভাবে চললেও কর্মকর্তারা কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। আবার বৈধ সংযোগ দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

জানা যায় এসকল অবৈধ গ্যাস, বিদ্যুৎ, কিংবা পানির সংযোগ থেকে মাসিক হারে মাসোহারা নিচ্ছে সংশ্লিষ্ট আঞ্চলিক শাখার কতিপয় কিছু দালাল ও কর্মকর্তারা। তাদের স্বার্থ হাসিলের ফলে সরকার হারাচ্ছে বিপুল পরিমান রাজস্ব। আর স্বার্থ হাসিল করে ফুলে ফেপে কোটিপতি হচ্ছে সংঘবদ্ধ একটি স্বার্থ লোভি কুচক্রী মহল।

অনুসন্ধানে জানা যায়, রাজধানী ঢাকার বেশিরভাগ বস্তিতে রয়েছে গ্যাস, বিদ্যুৎ কিংবা পানির, সম্পূর্ণ অবৈধ ও অপরিকল্পিত সংযোগ দেওয়া হয়েছে অর্থের বিনিময়ে নিলেও লাভ হচ্ছে না বিভিন্ন সময় পড়তে হচ্ছে সমস্যায়। এবং এসব জায়গায় বসবাস কারিদের ভোগান্তির শেষ নেই।

অপরিকল্পিত ভাবে নেওয়া গ্যাসের লাইন লিকেজ থাকার ফলেই বাড়ছে অগ্নিসংযোগ ও ভয়াবহ দুর্ঘটনা। আর জলেপুড়ে ছাই হয়ে অকালে প্রান হারাচ্ছে কমলমতি শিশু থেকে বয়স্ক ব্যক্তিরা। সর্বশান্ত হয়ে পথে বসছেন অনেকে।

আজ যে সূর্য সন্তানদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে পেয়েছি মহান স্বাধীনতা, পেয়েছি বাংলাদেশর মতো একটি সোনার বাংলাদেশ, পেয়েছি বাকস্বাধীনতা।

পূর্ব পাকিস্তান থাকা কালিন সময় এই বাঙ্গালীর উপর শারীরিক মানসিক ভাবে নির্যাতন চালাতেন পাকিস্তানের শাসকদল। ততকালীন সময়ে বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে ঘর থেকে বের হয়ে গিয়েছিল এই আমাদের সূর্য সন্তানেরা। অস্ত্র হাতে গর্জে উঠেছিলো পাকিস্তানের শাসক দলের বিরুদ্ধে ত্রিশ লক্ষ শহীদের রক্তের বিনিময় এনে দিয়েছিলো স্বপ্নের লাল সবুজের পতাকা।

তাহলে আজ কেনো সেই বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হবে? কেনো তাদের এই সমস্যা থেকে রেহাই দেওয়া হচ্ছে না এমনি প্রশ্ন এখন অনেকের?

আগামী পর্বে আসছি অবহেলিত নির্যাতিত মুক্তিযোদ্ধাদের স্বপক্ষে বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here