top news 24

নোয়াখালী প্রতিনিধি

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে স্বামী এবং শ্বশুর বাড়ির লোকজনের হাতে নির্মম নির্যাতনের শিকার হয়েছেন এক গৃহবধূ। নিজের নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরে ঘটনার পুরো বর্ণনা দিয়ে একটি ভিডিও প্রকাশ করেন ওই গৃহবধূ। গত ৭ অক্টোবর ৫ জনকে আসামি করে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে বাড়িতে গেলে সেখানেও তাকে পূনরায় মরধর করে আহত করেন স্বামী জয়নাল। 

অপরাধীরা গৃহবধূকে বিভিন্ন মাধ্যমে গুম খুনের হুমকি দিচ্ছেন বলেও অভিযোগ করেন নির্যাতিতা নারী। লিখিত অভিযোগের পর ৭২ ঘণ্টা পার হয়ে গেলেও অভিযুক্তদের গ্রেফতার না করায় নির্যাতিতাকে পালিয়ে বেড়াতে হচ্ছে। এমন ভিডিও সোস্যাল মিডিয়ায় প্রকাশের পর পুলিশ শুক্রবার বিকেলে আসামি গৃহবধূর স্বামী জয়নালকে গ্রেফতার করে। ভিডিওতে দেখা যায় নির্যাতিতা তার ওপর ঘটে যাওয়া নির্যাতনের বর্ণনা দিচ্ছেন। এসময় তিনি বলেন, ২০১৫ সালে সুবর্ণচর উপজেলার চরক্লার্ক ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের দক্ষিন চরক্লার্ক গ্রামের মৃত মনির আহম্মেদের ছেলে জয়নাল আবেদিন (৩৭)’র সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর জানতে পারেন জয়নাল এর আগেও আরো একটি বিয়ে করেছেন এবং ওই ঘরে ২ টি সন্তানও রয়েছে। বিয়ের ৩ মাস পর থেকে ব্যবসা করার নাম করে নির্যাতিতা নারীর কাছ থেকে একাধিকবার ৮০ হাজারের মতো টাকাও নেন জয়নাল।  

এছাড়াও গত এক বছর ধরে তাকে যৌতুকের দাবিতে জয়নাল আবেদিন ও তার বড় ভাই মাঈন উদ্দিন (৪০), জসিম উদ্দিন (৪৩), মাঈন উদ্দিনের ছেলে তারেক (১৯) একাধিকবার অমানসিক নির্যাতন করে। গত ৫ অক্টোবর পূনরায় তাকে যৌতুকের জন্য মারধর করে স্বামী জয়নাল আবেদিন। 

তিনি আরো বলেন গত ৩/৪ মাস ধরে নদী থেকে তার পরিচিত লোকের সাথে টাকার বিনিময়ে রাত কাটাতে বাধ্য করার চেষ্টা করেন, এতে সে রাজি না হলে শুরু হয় নির্মম নির্যাতন। মেয়ের ওপর এমন নির্যাতনের খবর পেয়ে তার মা মেয়েকে স্বামীর বাড়ি থেকে নিয়ে আসতে গেলেও অভিযুক্তরা তাকেও পিটিয়ে আহত করে। পরে কৌশলে তারা জয়নালের বাড়ি থেকে পালিয়ে এসে চরজব্বার থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। 

এ বিষয়ে চর জব্বার থানার ওসি (তদন্ত) ইব্রাহিম খলিল জানান, অভিযোগ ৭ অক্টেবর করা হলেও কিছু ভুল থাকায় আজ শুক্রবার সকালে তা সংশোধন করে মামলা রেকর্ড করা হয়েছে এবং বিকেলে অভিযুক্ত আসামি জয়নালকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here