top news 24

টাবা বর্ষণ ও জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে বরগুনার ৬ উপজেলার অর্ধশতাধিক গ্রাম। ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে ঢুকছে জোয়ারের পানি। নতুন করে ভাঙন দেখা দিয়েছে বেড়িবাঁধে। ভোগান্তিতে পানি বন্দী মানুষ। অস্বাভাবিক জোয়ারের কারণে পায়রা নদীর ফেরির গ্যাংওয়ে তলিয়ে তিন ঘণ্টা ফেরি চলাচল বন্ধ ছিল।

বরগুনা পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার (২১ আগস্ট) বরগুনার প্রধান তিনটি নদীতে বিপৎসীমার উপর দিয়ে বইছে জোয়ারের পানি। অমাবস্যার প্রভাবে পায়রা নদীতে বিপৎসীমার উপর ৪৭ সেন্টিমিটার, বিষখালী নদীতে বিপৎসীমার ৬২ সেন্টিমিটার এবং বলেশ্বর নদীতে ৩৫ সেন্টিমিটার উচ্চতায় জোয়ারের প্রবাহিত হয়েছে।

অস্বাভাবিক জোয়ারের চাপে প্লাবিত হয়েছে বরগুনা সদর উপজেলার বড়ইতলা, পোটকাখালী, বাওয়ালকার, মাইঠা, খাজুরতলা আবাসন, ফুলতলা আবাসন, তালতলী উপজেলার নিশানবাড়িয়া, ফকির হাট, সোনাকাটা, নিদ্রাসকিনা, তেতুলবাড়িয়া, আশার চর, নলবুনিয়া, তালুকদারপাড়া, চরপাড়া, গাবতলী, মৌপাড়া, ছোটবগী, আমতলী উপজেলার ঘোপখালী, বালিয়াতলী, পশুরবুনিয়া, আড়পাঙ্গাশিয়া, পশ্চিম আমতলী, ফেরীঘাট, পুরাতন লঞ্চঘাট, আমুয়ার চর। বেতাগীর ঝোপখালী, কেওয়াবুনিয়া,কালিকাবাড়ী, বামনার, রামনা,অযোধ্য, পাথরঘাটার, রুহিতা,পদ্মা,বাদুরতলা, চরদোয়ানী, কুপধন, কাকচিড়া এলাকাসহ চর ও নিম্নাঞ্চলের অর্ধশতাধিক গ্রাম জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হয়েছে। বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের বাইরের বসবাসরত মানুষের ঘরবাড়ি তলিয়ে যাওয়ায় দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। নষ্ট হচ্ছে বীজতলা ও ফসলী জমি। ভেসে যাচ্ছে মৎস্য খামার।
তালতলী তেতুঁলবাড়িয়া এলাকার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙ্গে যাচ্ছে। ওই বাঁধ রক্ষায় বরগুনা পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ বালুর বস্তা দিচ্ছেন বলে জানান স্থানীয়রা। দক্ষিণ-পশ্চিম আমতলী ও উত্তর টিয়াখালী আবাসনসহ ১০ টি আবাসন পানিতে তলিয়ে গেছে। ওই আবাসনের লোকজন গত চার দিন ধরে আনাহারে অর্ধাহারে দিনাতিপাত করছে। পাথরঘাটায় পদ্মা এলাকায় বেড়িবাঁধে ভেঙে প্লাবিত হয়েছে বেশ কয়েকটি গ্রাম।

এছাড়াও পায়রা নদীর ফেরির গ্যাংওয়ে তলিয়ে যায়। এতে বেলা সাড়ে ১১ টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত তিন ঘণ্ট ফেরি চলাচল বন্ধ ছিল। গ্যাংওয়ে তলিয়ে থাকায় মানুষকে বুক সমান পানি পেরিয়ে সড়কে উঠতে হয়েছে। যানবাহন চলাচলে সৃষ্টি হয়েছে মারাত্মক ভোগান্তি।

সরেজমিনে পায়রা নদীর ফেরিঘাট ঘুরে দেখা গেছে, পায়রা নদীর ফেরির গ্যাংওয়ে পানিতে তলিয়ে গেছে। মানুষ বক্ষ পরিমান পানি পেরিয়ে সড়কে উঠছে। গ্যাংওয়ের পানিতে গাড়ী আটকে গেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here