টপ নিউজ 24

কক্সবাজার প্রতিনিধি

চকরিয়ায় সন্ত্রাসী হামলায় পৌর মেয়র আলমগীর চৌধুরী ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতিক উদ্দিন চৌধুরীসহ ১০ নেতাকর্মী আহত হয়েছে। মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে কেন্দ্রের নির্দেশে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি লিটুকে পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়ার পর ক্ষুব্ধ হয়ে চিংড়ি চত্বর এলাকায় এ হামলার ঘটনা হয়। 

এ সময় উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রেফায়েত সিকদার, সাদ্দাম হোসেন মিটু, মিজান তুষার, লিটন, এডভোকেট ফজলুল কবির ও মিজবাহ উদ্দিন বাপ্পিসহ ১০ জন নেতাকর্মী আহত হয়। মেয়র প্রার্থী আলমগীর চৌধুরী বলেন, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটু দলীয় প্রতীকের বিরুদ্ধে গিয়ে নির্বাচন প্রচারণা ও দলীয় নেতাদের বিরুদ্ধে বিষোধগার করায় জেলা আওয়ামী লীগ তাকে সভাপতি পদ থেকে অব্যাহতি দেন। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে সদ্য অব্যাহতি পাওয়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটু ও বিতর্কিত যুবলীগ নেতা হাসানুল ইসলাম আদরের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা আতিক উদ্দিন চৌধুরী ও আমিসহ দলীয় নেতাকর্মীদের উপর হামলা চালিয়েছে।  

জানা যায়, দলীয় শৃঙ্খলা বিরোধী কার্যকলাপে জড়িত অভিযোগে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নির্দেশে মঙ্গলবার কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ চকরিয়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটুকে সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি দেন। তার স্থলে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয় পৌর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অধ্যাপক মোসলেহ উদ্দিন মানিককে।

এ খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িলে পড়লে লিটুর সমর্থকদের মাঝে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এর জের ধরে রাত ১০টার দিকে পৌর নির্বাচনের গণসংযোগ শেষে মেয়র আলমগীর চৌধুরী ও আতিক উদ্দিন চৌধুরী নেতাকর্মীদের নিয়ে মতবিনিময় করার সময় লিটু ও আদরের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী লাঠিসোটা নিয়ে তাদের উপর হামলা ও ভাংচুর চালায়। পরে মেয়রের  সমর্থকরা এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা ঘটনাস্থল থেকে সটকে পড়েন। 

পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতিক উদ্দিন চৌধুরী বলেন, পৌরসভার নৌকা প্রতিকের নির্বাচনী প্রচারণা শেষে নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময়কালে পৌরসভার গেট চিংড়ি চত্বরে সন্ত্রাসীরা অতর্কিত হামলা চালায়। এসময় আমি ও পৌরসভার মেয়রসহ ১০ জন নেতাকর্মী আহত হয়।

এদিকে বুধবার বিকাল ৪টায় গ্রামীণ ব্যাংক সেন্টারে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যের মাধ্যমে ঘটনার এসব বর্ণনা তুলে ধরেন হামলার শিকার বর্তমান মেয়র আলমগীর চৌধুরী। 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here