কুলাউড়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ফজলুল হক খান সাহেদ যেন মানবতার এক ফেরিওয়ালা

আকাশ আহমদঃ লক ডাউনে যানবাহন, অফিস আদালত, দোকান পাটসহ সব ধরনের কল-কারখানা বন্ধ । হাজার হাজার শ্রমিক কর্মচারী কর্মহীন হয়ে বেকার। হাতে নেই কাজ, ঘরে নেই খাবার। থমকে আছে গোটা জনজীবন । এমনি পরিস্থিতিতে কুলা্উড়া উপজেলার সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ালেন কুলাউড়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ফজলুল হক খান সাহেদ।

এমনি পরিস্থিতিতে পুরো উপজেলার প্রায় পাঁচ লক্ষাধিক মানুষ যখন অসহায়। ঠিক এমনি পরিস্থিতিতে জনগণের জন্য আশীর্বাদ হয়ে মাঠে নামলেন দলীয় নেতাকর্মী সাথে নিয়ে কুলাউড়া উপজেলা আল ইসলাহ সমাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক খান সাহেদ ।

তিনি আর কেউ নয় যাকে কুলাউড়া উপজেলার মানুষের ভোটে ২য় বারের মতো নিবাচিত কুলাউড়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মাও ফজলুল হক খান সাহেদ।
গত ৪ মাস দিনরাত শ্রম দিয়ে যাচ্ছেন হত দরিদ্র মানুষের জন্য। দরিদ্র পরিবারে মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন। জনগণকে সচেতন করা, সরকারি নির্দেশনা বাস্তবায়ন যেখানে সমস্যা সেখানেই সাহেদ ।তাই জনপ্রতিনিধিদের উপর ক্ষুব্ধ মানুষও তাকে নিয়ে নতুন করে ভাবতে শুরুতেই করেছে। কুলাউড়া উপজেলারবাসী। কুলাউড়ার বিখ্যাত পরিবারের সন্তান ফজলুল হক খান সাহেদ রয়েছে ইসলামিক রাজনৈতিক ক্যারিয়ার। এবং উপজেলা আল ইসলাহ্ সাধারণ সম্পাদক হিসেবে খ্যাতি রয়েছে। উপজেলা আল ইসলাহ সাংগঠনিক সস্পাদক নির্বাচিত থাকাবস্থায় ২০১৪ সালে বিপুল ভোটে তিনি ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ইসলামিক রাজনীতির সাথে জড়িত থেকে দীর্ঘ ১৩ বছর । বর্তমান বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহ কুলাউড়া উপজেলা শাখার সম্পাদক এর দায়িত্ব পালন করেছিন। এবং ২০১৮ সালে দ্বিতীয় বারের মত ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। যেকোনো আন্দোলনর ও মিছিলের অগ্রভাগে থাকতেন সাহেদ জণগণরে বিপদ আপদ মুখ দুখের জন্য প্রতিনিধি নির্বাচিত করেন। কিন্তু দুখ জনক হলেও সত্য বিগত জাতীয় নির্বাচনে সু সময়ের বন্ধুদের সুন্দর মনভুলানো কথামালার ফুলঝুরি তে মানুষ বিভ্রান্ত হয়ে এখন বিপদগ্রস্ত। দেশের এই দুর্দিনে তাদের পাওয়া যাচ্ছে না। কেউ কুলাউড়া শহরের বাইরে আবার কেউ আরো দূরে প্রবাসে।অথচ এই উপজেলার ৩ লাখ মানুষ আজ চরম অসহায়। অবশ্য মানুষের এই বিপদে আমরা একজন কে পাশে পেয়েছি। পুরো দল নিয়ে মাঠে আছেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ফজলুল হক খান সাহেদ আমি মনে করি বঞ্চিত কুলাউড়া বাসীর দাবি আদায়ে সকল স্তরে উনার মতো জনবান্ধব নেতৃত্ব প্রয়োজন।উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত মাওঃ ফজলুল হক খান সাহেদ কোনদিন যদি আমরা জাতীয় সংসদে পাঠাতে পারি কুলাউড়া উপজেলার মানুষ প্রকৃত সুফল ভোগ করবে। উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সাহেদ খান বলেন ইসলামিক রাজনীতি আমার পেশা বা ব্যবসা নয়। এটা আমার নেশা ১০ বছর যাবত কুলাউড়া উপজেলার মানুষকে সেবা দিয়ে যাচ্ছি।আমি নিজেকে এই কুলাউড়া উপজেলার মানুষের জন্য উৎসর্গ করেছি অনেক আগে।আর এই দায়িত্ববোধ থেকেই করে যাচ্ছি।জনগণ তাদের প্রয়োজনে যখন যে চেয়ারে দিবে আমি সে দায়িত্ব পালনে প্রস্তুত রয়েছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here