টপ নিউজ 24

অনলাইন ডেস্ক

কঠোর লকডাউনের মধ্যে রপ্তানিমুখী কারখানা খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্তের পর মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটে ঢাকামুখী মানুষের ঢল নেমেছে।

শনিবার ভোর থেকে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে চলাচলকারী প্রতিটি ফেরিতে মানুষের ভিড় উপচে পড়ছে।

করোনা সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি রুখতে ঈদুল আজহার পর ২৩ জুলাই থেকে সরকার সারা দেশে কঠোর লকডাউন আরোপ করে, যা চলবে আগামী ৫ আগস্ট পর্যন্ত। ঈদের ছুটিতে যারা গ্রামে গিয়েছিলেন, তাদের ৫ আগস্টের পর ঢাকায় ফিরতে অনুরোধ করেছিলেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। একই অনুরোধ জানিয়েছিল পোশাক উৎপাদন ও রপ্তানিকারক উদ্যোক্তাদের সংগঠন বিজিএমইএ।

কিন্তু সেই অনুরোধের তোয়াক্কা না করেই ঢাকামুখী হতে শুরু করেছেন তৈরি পোশাক খাতের শ্রমিকরা।

শনিবার সকালে পাটুরিয়া ঘাটে ঢাকাগামী যানবাহনের অপেক্ষায় ছিলেন পোশাক শ্রমিক কাকলী আক্তার, আঞ্জু খাতুন, রানা শেখ। তারা সবাই এসেছেন রাজবাড়ী থেকে।

রানা শেখ বলেন, ‘কালকে থেকে গার্মেন্টস খোলা। তাই যত তাড়াতাড়ি পারি, ঢাকার বাসায় যাওয়াই লাগব। আমাদের কালকেই কাজে জয়েন করতে হইব। তাই আজকেই চলে আসছি।’

কাকলী আক্তার বলেন, ‘পাঁচ তারিখের পরে আসার জন্য কী জানি বলছিল, সেটা আমরা তো জানি না। আমাদের বলা হইসে, কালকে থেকে কাজে আসা লাগব। তাই সকাল সকাল রওনা দিসি আজ। করোনার কথা চিন্তা কইরা লাভ আছে? আমাদের তো পেট চলা লাগব।’

কাকলী ও রানাদের মতো হাজারো পোশাক শ্রমিক এদিন সকালে ভিড় করেছেন পাটুরিয়া ঘাটে। তাদের অনেকে যানবাহন না পেয়ে পায়ে হেঁটে রওনা দিয়েছেন গন্তব্যের উদ্দেশ্যে।

কেউ আবার পাটুরিয়া ও আরিচা ঘাট থেকে ৯-১০কিলোমিটার পায়ে হেটে উথলী, চেপড়া, বরংগাইলসহ বিভিন্ন ষ্টেশনে এসে হ্যালোবাইক, অটোরিক্সা, ভ্যান, সিএনজি ও প্রাইভেটার, মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন যানবাহনে তিন চার গুণ ভাড়া বেশি দিয়ে ঢাকায় যাচ্ছেন।

গণপরিবহন বন্ধ থাকায় পাটুরিয়া ঘাট থেকে প্রাইভেটকার, মোটরসাইকেল ও সিএনজিতে জনপ্রতি ৮০০ থেকে ১ হাজার টাকা গুণতে হচ্ছে যাত্রীদের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here