top news 24

অনলাইন ডেস্ক

শুটিংয়ে মৌমাছির আক্রমণে গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ছোট পর্দার অভিনেতা ও পরিচালক মিলন ভট্টাচার্য। চার শতাধিক মৌমাছির কামড় খেয়েছেন তিনি। মৌমাছির কামড়ে একসময় তিনি অচেতন হয়ে পড়েন। এই সময় শুটিং ইউনিটের অভিনয়শিল্পী, ক্যামেরাম্যান, ক্রুসহ ১৭ জন আক্রমণের শিকার হন। সোমবার সকালে ‘জমিদার বাড়ি’ নামের একটি ধারাবাহিক নাটকের শুটিং সেটে এই ঘটনা ঘটে।
মানিকগঞ্জের বেথিলা জমিদার বাড়িতে শুটিংয়ের সময় এই ঘটনা ঘটে বলে জানান নির্মাতা সাজ্জাদ হোসেন দোদুল। জমিদার বাড়ির পাশে বাঁশঝাড়ে সকাল ১০টা থেকে দৃশ্যধারণ শুরু হয়। দুটি দৃশ্যের পর বেলা সাড়ে ১১টার দিকে হঠাৎ মৌমাছির আক্রমণ শুরু হয়। সঙ্গে সঙ্গে বন্ধ হয়ে যায় শুটিং।

এই সময় লাইট, ক্যামেরা ফেলে উপস্থিত সবাই দিগবিদিকশূন্য হয়ে দৌড়াতে থাকেন। দোদুল জানান, একসঙ্গে হাজার হাজার মৌমাছির আক্রমণে তাঁরা ছন্নছাড়া হয়ে দৌড়াতে থাকেন।অভিনেতা মিলনের গায়ে লাল ধুতি–পাঞ্জাবির মধ্যে ঢুকে পড়ে মৌমাছির দল। মৌমাছির কামড়ে একসময় তিনি সংজ্ঞা হারিয়ে ফেলেন মিলন। দোদুল বলেন, ‘হাজার হাজার মৌমাছির আমাদের লক্ষ্য করে আক্রমণ শুরু করে। সবচেয়ে বেশি কামড়িয়েছে মিলনকে। আমি নিজে তাঁর শরীর থেকে ৫০টির বেশি শাল উঠেয়েছি। তাঁর শারীরিক অবস্থা খারাপ হলে সঙ্গে সঙ্গে মানিকগঞ্জের সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই তাঁর চিকিৎসা চলছে।’ হঠাৎ করেই মৌমাছির দল ছুটে আসায় শুটিং ইউনিটের অনেকেই ধারণা করছেন, কেউ হয়তো মৌচাকে ঢিল মেরেছেন।

মিলন ভট্টাচার্যের গায়ে লাল রঙের ধুতি–পাঞ্জাবি থাকায় এই অভিনেতা যেদিকেই দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করেছেন, সেদিকেই মৌমাছি গিয়ে তাঁকে কামড়িয়েছে। এই সময় তাঁর পোশাকের ভেতর ঢুকে পড়ে শত শত মৌমাছি। একসময় তিনি আর দৌড়াতে পারেননি। রাস্তায় পড়ে যান।

নির্মাতা জানান, মৌমাছি যখন কোনোভাবেই তাড়ানো যাচ্ছিল না, তখন তাঁরা আগুনের মশাল জালিয়ে ধোঁয়া তৈরি করেন। প্রায় দুই ঘণ্টা পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। পরে বিকেল চারটার দিকে শুটিং শুরু হলেও কাজের সেই গতি মিলিয়ে যায়। মানসিকভাবেও সবাই কিছুটা ভীতসন্ত্রস্ত ছিলেন। আজকের শুটিংয়ে অংশ নিয়েছেন শম্পা রেজা, আ খ ম হাসান, মাহমুদুল ইসলাম মিঠুসহ ১০ জন অভিনয়শিল্পী। মিলন ছাড়া অন্যরা অক্ষত আছেন। মৌমাছি আক্রমণের সময় তাঁরা শুটিং বাড়ির রূপসজ্জাকক্ষে ছিলেন।

জমিদার পরিবারের বর্তমান কর্মকাণ্ড নিয়েই ‘জমিদার বাড়ি’ নাটকটির গল্প। লিখেছেন টিপু আলম। নাটকটি প্রতি মঙ্গলবার থেকে বৃহস্পতিবার তিন দিন রাত ৯টা ২০ মিনিটে প্রচারিত হয়। নাটকটি বেশ প্রশংসিত হওয়ায় রাত ১১টায় পুনঃপ্রচার করা হয়। বিভিন্ন চরিত্রে আরও অভিনয় করেছেন শিল্পী সরকার অপু, সুব্রত, মোমেনা চৌধুরী, রাশেদ মামুন অপু, মনোজ সেনগুপ্ত, নাদিয়া মীম, সিফাত, ইমতুসহ অনেকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here